ঢাকাThursday , 15 September 2022
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-বিচার
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও কৃষি
  7. খেলাধুলা
  8. গনমাধ্যাম
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচন
  13. প্রবাসের খবর
  14. প্রযুক্তি সংবাদ
  15. ফিচার

বগুড়ায় চাঞ্চল্যকর আখের আলী হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার

Link Copied!

সহযোগীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়া এবং আড়াই লাখ টাকা আত্মসাতের প্রতিশোধ নিতে তিনটি হত্যাসহ ৮ মামলার আসামি আখের আলীকে (৩৮) গলা কেটে হত্যা করে তারই সহযোগী। হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি বাচ্চু মিয়া (৫৫) ওরফে কালা মানিক। হত্যাকাণ্ডের পর খাগড়াছড়ির দুর্গম পাহাড়ে আত্মগোপন করে থাকা কালা মানিককে গ্রেফতার করেছে বগুড়ার নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ। আখের আলীকে হত্যার কারণ এবং দায় উল্লেখ করে আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দী দিয়েছেন কালা মানিক।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) এতথ্য জানিয়েছেন নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন।

গত ২২ আগস্ট সকাল সকাল ১০ টায় নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ ওমরপুর এলাকায় ধান ক্ষেত থেকে আখের আলীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে। আখের আলী বগুড়া সদরের সাবগ্রাম ইউনিয়নের চান্দপাড়া গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। ভাবীর সাথে পরকীয়ার কারনে আপন বড় ভাই রাশেদ হত্যাসহ তিনটি হত্যা মামলা ছাড়াও ডাকাতি ও ছিনতাই এর অভিযোগে আরো ৫ টি মামলা ছিল আখের আলীর নামে।

আখের আলী হত্যার পর পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে অনুসন্ধান করে জানতে পারে ২১ আগস্ট রাতে আখের আলী খুন হওয়ার আগ পর্যন্ত কালা মানিক তার সাথেই ছিল। এরপর থেকেই পুলিশ কালা মানিককে সন্দেহের তালিকায় রেখে তদন্ত নামেন। তদন্তকালে পুলিশ জানতে পারে জেল খানায় আখের আলীর সাথে পরিচয় হয় কালা মানিকের। সেখানেই তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে সখ্যতা। ৬ মাস আগে জামিনে বের হন আখের আলী।

আরও পড়ুন- রামগড়ে ৫ দফা দাবিতে পিআইও অফিসের কর্মবিরতি

আর গত দুই মাস আগে জামিনে বের হন কালা মানিক। আখের আলী জামিনে বের হয়েই কালা মানিকের ৩য় স্ত্রীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। কালা মানিক জামিনে বের হয়ে তার স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পেরে কৌশলে আশ্রয় নেন আখের আলীর বাড়িতে। সেখানে অবস্থান করে তারা বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি ও ছিনতাই করতেন। ডাকাতির টাকার ভাগ থেকে আড়াই লাখ টাকা আখের আলীর কাছে রাখতে দেয় কালা মানিক। কিছুদিন পর আখের আলী সেই টাকা আত্মসাত করে।

এনিয়ে আখের আলীর উপর ক্ষোভ বাড়তে থাকে কালা মানিকের। পরিকল্পনা করে তাকে খুন করে প্রতিশোধ নেয়ার। সেই অনুযায়ী ২১ আগস্ট কালা মানিক আখের আলীকে জানায়, নন্দীগ্রামে একটি দোকানের সিন্দুক ভাঙ্গতে পারলে নগদ টাকা এবং সোনার গহনা পাওয়া যাবে। সেই রাতে আখের আলী তার এক বন্ধুর মোটরসাইকেল নিয়ে কালা মানিকসহ নন্দীগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। সিন্দুক ভাঙ্গার জন্য কালামানিক সাথে একটি চাপাতি ও লোহার শাবল সাথে নেন। রাত ১০ টার দিকে তারা নন্দীগ্রাম উপজেলার ওমরপুর বাজারে কাছে মহাসড়কের ধারে একটি বাগানে অপেক্ষা করতে থাকে। একপর্যায় কালা মানিক তার হাতে থাকা লোহার শাবল দিয়ে আখের আলীর মাথায় আঘাত করে। আখের আলী দৌড়ে ধান ক্ষেতে পড়ে গেলে সেখানেই চাপাতি দিয়ে গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে কালা মানিক। এরপর মটরসাইকেল ও আখের আলীর মোবাইল ফোন ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি জানান, কালা মানিক ওরফে বাচ্চুকে টার্গেট করেই পুলিশ তদন্ত শুরু করে জানতে পারে পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলায় তার অবস্থান। সেখানে পুলিশের একটি টীম পাঠানোর পর ৭ দিন ধরে অভিযান চালিয়ে কালা মানিককে গ্রেফতার করা যায়নি। কালা মানিক অবস্থান পরিবর্তন করে খাগড়াছড়ি দুর্গম পাহাড়ে অবস্থান নেন।

পরবর্তীতে নন্দীগ্রাম থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) আশরাফুল আলম এর নেতৃত্বে একটি টিম খাগড়াছড়ি সদর থানাধীন দাতকুপিয়া গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে জানতে পারে যে, কালা মানিক উক্ত গ্রাম থেকে ২৫ কিলোমিটকর দুরে কালা পাহাড় নামক টিলায় অবস্থান করছে। ১২ সেপ্টেম্বর ভোরে বাচ্চু মিয়া ওরফে কালা মানিক-কে উক্ত পাহাড়ের টিলা হতে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পরে ঘটনাস্থলে নিয়ে এসে হত্যার কাজে ব্যবহৃত একটি মাংস কাটা চাপাতি এবং একটি লোহার রড উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত বাচ্চু মিয়া ওরফে কালা মানিক’র বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে নন্দীগ্রাম থানায় ধর্ষণের পর হত্যা মামলা ছাড়াও শাজাহানপুর ও শিবগঞ্জ থানায় ডাকাতি, চুরি ও ছিনতাই এর মামলা রয়েছে।

শীর্ষসংবাদ/নয়ন

biggapon বিজ্ঞাপন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
ঢাকা অফিসঃ ১৬৭/১২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল ঢাকা- ১০০০ আঞ্চলিক অফিস : উত্তর তেমুহনী সদর, লক্ষ্মীপুর ৩৭০০