ঢাকাWednesday , 31 August 2022
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-বিচার
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও কৃষি
  7. খেলাধুলা
  8. গনমাধ্যাম
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচন
  13. প্রবাসের খবর
  14. প্রযুক্তি সংবাদ
  15. ফিচার
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দাতা সংস্থাগুলোর কাছে ৬৫০ কোটি ডলার ঋণ চেয়েছে বাংলাদেশ

Link Copied!

বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দাতা সংস্থাগুলোর কাছে এ পর্যন্ত ৬৫০ কোটি (৬.৫ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা চেয়েছে। যা বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় বাজেট সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।

এরমধ্যে ৪৫০ কোটি (৪.৫ বিলিয়ন) ডলার চাওয়া হয়েছে আইএমএফের কাছে। বিশ্বব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডলার এবং এডিপির কাছে চাওয়া হয়েছে ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডলার। ঋণ প্রস্তাবগুলো নিয়ে আলোচনা চলছে। ঋণ মঞ্জুরের পর অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হলে প্রকল্পসহ যে কোনো খাতে ব্যয় করা যাবে। বাজেট সহায়তা হিসাবে পাওয়া ঋণে এ সুযোগ আছে এবং সরকার সেটা কাজে লাগাতে পারে। যদিও এ বছর ঘাটতি বাজেট পূরণের জন্য বিদেশি ঋণের প্রয়োজন প্রায় ১২শ কোটি (১২ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

বিশ্লেষকদের মতে, বাজেট সহায়তার এ ঋণ পাওয়া গেলে, সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, অর্থনীতি পুনরুদ্ধার, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নসহ নানা কর্মসূচিতে ব্যবহার করা হবে। বিশেষ করে নির্বাচনের আগের অর্থবছরে অনেক ধরনের প্রকল্প থাকে সেখানেও এ টাকা ব্যয়ের সুযোগ আছে। তবে ডলার সংকটের মধ্যে বিদেশি ঋণ পাওয়ার পর রিজার্ভ বাড়ানোর দিকেও সরকারের মনোযোগ থাকবে বলে তারা মনে করেন। অর্থাৎ দেশের মানুষের তেমন প্রয়োজন নেই এমন কোনো খাতে এ ঋণের টাকা ব্যয় হবে না সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

এছাড়া রাজনৈতিক দলগুলোও ঋণের টাকা ব্যয়ের বিরোধিতায় নামতে পারে এমন সুযোগ দেওয়া ঠিক হবে না। গত অর্থবছরে (২০২১-২২) বাজেট সহায়তা হিসাবে আইএমএফসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার কাছে থেকে ৭৩২ কোটি (৭.৩২ বিলিয়ন) ডলার ঋণ সহায়তা পাওয়া গেছে। এ টাকা সরকার নিজের প্রয়োজন মতো ব্যয় করেছে।

এদিকে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে আইএমএফের কাছে পাঠানো চিঠির জবাব আমরা এখনও পাইনি। সংস্থাটি সরকারের দেয়া প্রস্তাব পর্যালোচনা করবে। তাদের আরেকটি টিম বাংলাদেশে আসবে। তাদের সঙ্গে নেগোসিয়েশন হবে। তারপর ঋণ পাওয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। এসব প্রক্রিয়া শেষ করে ঋণ পেতে সময় লাগবে। আইএমএফের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি আমরা এখনও পাইনি।

আইএমএফের দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ইউক্রেনে যুদ্ধের জের ধরে বিশ্ব অর্থনীতিতে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে, তা সামাল দিতে ইতোমধ্যে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ।

‘সরকার মুদ্রাপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নিয়েছে, মুদ্রা বিনিময় হার শিথিল করেছে, কম জরুরি পণ্য এবং জ্বালানি আমদানিতে সাময়িক কড়াকড়ি আরোপ করেছে। বিদ্যুৎ খরচ কমাতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি কম জরুরি প্রকল্পে বরাদ্দ স্থগিত করে বেশি জরুরি খাতে ব্যবহারের নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। তারপরও আরও অনেক দেশের মতো বাংলাদেশ সাম্প্রতিক বৈশ্বিক সংকটের কারণে বিভিন্ন অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে।’

আইএমএফ বলছে, ‘তাৎক্ষণিক চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করতে পারলেও বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের মতো দীর্ঘমেয়াদি সমস্যাগুলো সঠিকভাবে সামাল দেয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে। কারণ এসব সমস্যা দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘এ ধরনের ক্ষেত্রে অর্থায়নে সহযোগিতা দিতেই তারা আরএসটি ফান্ড গঠন করেছে এবং বাংলাদেশও এই তহবিল থেকে অর্থ পেতে পারে। আর এই তহবিল থেকে ঋণ পেতে হলে আইএমএফ-সমর্থিত প্রকল্প নিতে হবে।

‘বাংলাদেশের অনুরোধে সাড়া দিতে আইএমএফ প্রস্তুত। আশা করা হচ্ছে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে বাংলাদেশের জন্যও আরএসটি ফান্ড সচল হয়ে যাবে। আর এই সময়ে আইএমএফ কর্মীরা প্রকল্প চূড়ান্ত করতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নেবে।’

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার বাজেট সহায়তা হিসেবে আইএমএফ ছাড়াও তিনটি সংস্থার কাছে ঋণ চেয়েছে। বিশ্বব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি ডলার ঋণ চাওয়া হয়েছে। জাইকার কাছেও ঋণ সহায়তা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি ডলার ঋণ চাওয়া হয়েছে।

সবমিলে ৬৫০ কোটি ঋণ ডলার সহায়তা চেয়েছে সরকার। স্থানীয় মুদ্রায় এর পরিমাণ ৬১ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা। অবশ্য এই হিসাবে বাংলাদেশ ব্যাংক নির্ধারিত ডলারের দর হিসাবে। তবে আন্তব্যাংক লেনদেন ও কার্ব মার্কেটে ডলারের দর ধরলে চাহিদা জানানো ঋণের পরিমাণ টাকার অংকে আরও বেশি হবে।

শীর্ষসংবাদ/নয়ন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
ঢাকা অফিসঃ ১৬৭/১২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল ঢাকা- ১০০০ আঞ্চলিক অফিস : উত্তর তেমুহনী সদর, লক্ষ্মীপুর ৩৭০০