XJatyo XBudget cover বাজেট কভার
ঢাকাSunday , 16 April 2023
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. অর্থ ও বাণিজ্য
  4. আইন-বিচার
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও কৃষি
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যাম
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচন
  13. প্রবাসের খবর
  14. ফিচার
  15. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
biggapon বিজ্ঞাপন
আজকের সর্বশেষ সবখবর
  • Xrovertourism rovaar ad বিজ্ঞাপন
  • শেয়ার করুন-

  • লক্ষ্মীপুরে মিথ্যা মামলায় ২৭ মাস কারাভোগ : পুলিশসহ ৪ জনের নামে মামলা

    Link Copied!

    নিখোঁজ স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে ২৭ মাস কারাভোগ করায় লক্ষ্মীপুর আদালতে পুলিশসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন মোহাম্মদ হোসেন নামের এক দরিদ্র জেলে। রোববার দুপুরে লক্ষ্মীপুর আমলি ম্যাজিষ্ট্রেট (রামগতি) আদালতে। মামলায় দ্বিতীয় স্ত্রী পারুল বেগমের বাবা-মা ও ভাই এবং এক পুলিশ কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাত নারীর লাশকে পারুলের লাশ অভিহিত করে হত্যা মামলা সাজিয়ে হোসেন ও তার দুই মেয়েকে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছে। ১১ জুন পরবর্তি তারিখ পর্যন্ত এই মামলার প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সিআইডিকে নির্দেশনা দেন আদালত।

    স্বামীর প্রতি অন্যায়-অবিচার করা হচ্ছে শুনে দ্বিতীয় স্ত্রী পারুল বেগম ঢাকায় গৃহকর্তার বাসায় আত্মহত্যা করেন। আর এ ঘটনাকে গোপন করে হোসেনের বিরুদ্ধে পারুলের বাবা-মা ও ভাই হত্যা মামলা করেন। এ মামলায় জেলে হোসেন ২৭ মাস লক্ষ্মীপুরে কারাভোগ করেন।

    রোববার বাদীর আইনজীবী আব্দুল আহাদ শাকিল পাটোয়ারী সাংবাদিকদের জানান, জেলে হোসেনের মামলায় লক্ষ্মীপুরের রামগতি থানার সাবেক এসআই মজিবুর রহমান তফাদার, বাদীর শ্বশুর মো. বাহার মিস্ত্রি, শাশুড়ি হাজেরা বেগম ও শ্যালক বাবুলকে আসামি করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. বেলায়েত হোসেন (রামগতি অঞ্চল) এর আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে সিআইডিকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য আদেশ দেন।

    মামলার বিবরণে বলা হয়, রামগতির দরিদ্র জেলে হোসেনের (৪৬) প্রথম স্ত্রী দুই মেয়ে নূপুর (১৪) ও জুমুরকে (১২) রেখে মারা যান। এরপর তিনি পারুলকে বিয়ে করেন। তাদের ঘরে দুই ছেলে রয়েছে। ২০১৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর পারুল নিখোঁজ হলে হোসেন ২৫ সেপ্টেম্বর রামগতি থানায় জিডি করেন। এরই মধ্যে ১৪ অক্টোবর রামগতির বাংলালিংক টাওয়ারের বাথরুমে অজ্ঞাত নারীর লাশ পাওয়া যায়। ওই লাশ পারুলের বলে দাবি করেন তার বাবা-মা।

    ওইদিনই হোসেনকে আটক করে পুলিশ। হোসেনকে আসামি করে রাতেই বাহার মিস্ত্রি হত্যা মামলা করেন। পারুলকে বৈদ্যুতিক শক দিয়ে নির্যাতন করে হত্যা করেছে হোসেন এই বলে দুই মেয়ের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি আদায় করে পুলিশ। পরের দিন তাদের দিয়ে বাবার বিরুদ্ধে ১৬৪ ধারায় আদালতে মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায় করে নেয় এসআই আবদুল মজিদ দফাদার।

    এ মামলায় ২৭ মাস কারাভোগের পর ডিসেম্বরে উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান হোসেন। এরপর হোসেন জানতে পারেন-সংসারের অভাব-অনটনের কারণে পারুল তার মা-বাবার পরামর্শে ঢাকার লালবাগের নিউ পল্টন রোডের একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ নেয়। গার্মেন্টসে চাকরির কথা বলে ভাই বাবুল তাকে ঢাকায় নিয়ে যায়।

    স্বামীর প্রতি অবিচার হচ্ছে শুনে ২০১৯ সালের ১৯ অক্টোবর বাসার জানালার গ্রিলের সঙ্গে ওড়না প্যাঁচিয়ে পারুল আত্মহত্যা করেন। পারুলের লাশ বাবুল গ্রামের বাড়ি রামগতিতে না এনে গোপনে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করেন।

    অসহায় হোসেন জানান, শ্বশুর-শাশুড়ি ও শ্যালক পরিকল্পিতভাবে পারুলকে ঢাকায় লুকিয়ে রেখে অজ্ঞাতনামা অর্ধগলিত নারীকে তার (পারুল) লাশ হিসাবে শনাক্ত করে। মিথ্যা হত্যা মামলা দিয়ে তাকে ২৭ মাস কারাভোগ করিয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তাসহ চারজনের বিচার চান তিনি।

    এ বিষয়ে অভিযুক্ত বাহার, তার স্ত্রী হাজেরা বেগম ও ছেলে বাবুলের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।।

    রামগতি থানার সাবেক এসআই মজিবর রহমান তফাদার বলেন, মামলাটি আমার কাছে এক মাস থাকার পর সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়। আমার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ মিথ্যা।

    মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির উপ-পরিদর্শক আশরাফ উদ্দিন বলেন, দ্বিতীয় স্ত্রী পারুলকে হোসেন হত্যা করেননি। পারুল ঢাকায় আত্মহত্যা করেন। দীর্ঘ তদন্তের পর মামলাটি মিথ্যা বলে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছি।

    আদালত সূত্রে জানা যায়, চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিলের পর বিগত ৪/৪/২০২৩ ইং তারিখে আদালত চুড়ান্ত রিপোর্ট গ্রহণ করে আসামি মো: হোসেনকে স্ত্রী হত্যায় দায়ের হওয়া মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

    Share this...

    বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
    ঢাকা অফিসঃ ১৬৭/১২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল ঢাকা- ১০০০ আঞ্চলিক অফিস : উত্তর তেমুহনী সদর, লক্ষ্মীপুর ৩৭০০
    biggapon ad advertis বিজ্ঞাপন এ্যাড অ্যাডভার্টাইজ  
  • আমাদেরকে ফলো করুন…