ঢাকাSaturday , 30 July 2022
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি বার্তা
  6. খেলাধুলা
  7. গনমাধ্যাম
  8. চাকরি
  9. জাতীয়
  10. ধর্ম
  11. প্রবাসের খবর
  12. প্রযুক্তি সংবাদ
  13. ফিচার
  14. ফ্যাশন
  15. বিনোদন

লক্ষ্মীপুরে জেলা পরিষদের বিরুদ্ধে বৈহিরাগতদের দিয়ে জমি দখলের অভিযোগ

Link Copied!

লক্ষ্মীপুরে ওয়ারিশি ও ক্রয়কৃত প্রায় ২০ কোটি টাকা মূল্যের ৭৬ শতাংশ সম্পত্তি বৈহিরাগতদের দিয়ে জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। আজ শনিবার (৩০ জুলাই) দুপুরে লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের হল রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জেলা পরিষদের প্রশাসক মো. শাহজাহানের বিরুদ্ধে জবর দখলের চেষ্টার এ অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।
ভুক্তভোগীরা হলেন, লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের সমসেরাবাদ এলাকার হাজী আবদুল গফুরের ছেলে নাসির আহমদ, নুরুল ইসলাম এবং মো. ইমরান মাহমুদ সবুজ, স্বপন চন্দ্র নাথ, আরতি রাণী পালসহ ৭টি পরিবার।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নাসির আহমেদ অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ ৮০ বছরের ক্রয় ও ওয়ারিশি জমিতে দোকানপাট ও গ্যারেজ নির্র্মাণ করে ভোগদখল করে আসছি। কিন্তু গতকাল শুক্রবার দুপুরে জেলা পরিষদের প্রশাসক মো. শাহজাহান ওই জমি জেলা পরিষদের দাবী করে প্রথমে সার্ভেয়া পাঠিয়ে ও পরে স্থানীয় যুবলীগ নেতা মাহবুবুল আলম, জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব ইমতিয়াজ, ছৈগিরসহ বৈহিরাগত লোকজন দিয়ে আমাদের গ্যারেজ ও দোকানঘর উচ্ছেদে করে জবর দখলের চেষ্টায় হামলা চালায়। এতে বাধা দিতে গেলে আমাদের পরিবারের ৫জন গুরুত্বর আহত হয়। এসময় ৯৯৯ এ ফোন দিলে শহর পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আমাদের উদ্ধার করে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
তিনি আরো বলেন, বিগত ১৯৩৯ সালের্ (খতিয়ান নং-২৫৮৭ নকশায় ‘ঞ’ চিহ্ন প্লট ৪৩১৮, ১৯, ২০ দাগের) ৭৬ শতাংশ ভুমি নিলাম তোলে নোয়াখালী ডিস্ট্রিক্ট বোড। নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা নবদ্বীপ চন্দ্র নাথকে ৬ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যে ৭৬ শতাংশ জমি ছাবকবলা করে দেয়া হয় ১৯৪২ সালে। নবদ্বীপ চন্দ্র নাথের মৃত্যুর পর ওয়ারিশ তার ছেলে কৃষ্ণ পদ নাথ ও স্ত্রী সুশীলা সুন্দরী ওই জমি ১৯৫৬ সালে মৃত হাজী আব্দুল গফুর, মহেন্দ্র পাল, কৃষ্ণ কামিনী নাথ অঞ্জনী দেবী, কিরণ বালা লাল মোহন নাথ এর কাছে সবটুকু সম্পত্তি বিক্রি করেন। সেই সূত্রে পর্যায়ক্রমে ক্রয় ও ওয়ারিশ সূত্রে জমির মালিক হন হাজী নুরুল ইসলাম, নাসির আহমেদ, স্বপন চন্দ্র পাল, মৃত বিনোদ বিহারী পাল, হাসান মোল্লা, মৃত ভুলু মিয়া ও মাঈন উদ্দিন। দীর্ঘ ৮০ বছর ধরে পর্যায়ক্রমে মালিকগন মালিকানা রেকডসহ নিয়মিত খাজনা পরিশোধ করে আসছেন। অথচ জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে আমাদের মালিকানাধীন রেকর্ড সংশোধন করে জেলা পরিষদে নিজেদের মালিকানায় নেওয়ার আবেদন করেন। এ নিয়ে গত ২২ জুন ২০২২ তারিখে জেলা রেকর্ড অফিসে এই আবেদনের শুনানী হয়। যার কোন আদেশ বা অনুলিপি এখনো প্রকাশ হয়নি। এমতাবস্থায় রেকর্ড সংশোধনের আবেদন করেই জেলা পরিষদ উক্তি জমি দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কোন নোটিশ ছাড়াই গত ২৯ জুলাই শুক্রবার দিনব্যাপী বহিরাগতদের দিয়ে জবরদখলের চেষ্টা চালিয়েছে প্রশাসক মো. শাহজাহান। এঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন তারা।
আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন ছিলেন ভুক্তভোগী স্বপন চন্দ্র নাথ, মো. ইমরান মাহমুদ সবুজ, আরতী রাণী পাল। এসময় লক্ষ্মীপুরে কর্মরত বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিকস্, অনলাইন ও প্রিণ্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহান বলেন, ওই জমিটি মূলত জেলা পরিষদের। বহিরাগতদের দিয়ে জমি দখলের বিষয়টি সঠিক নয়। নতুন ইজারাদাররা জমি বুঝে নিতে গেলে বরং তারা হামলা করে একজনকে আহত করেছে। প্রতিপক্ষকে মালিকানার কাগজ দেখাতে বললে তারা দেখায় নি।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
ঢাকা অফিসঃ ১৬৭/১২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল ঢাকা- ১০০০ আঞ্চলিক অফিস : উত্তর তেমুহনী সদর, লক্ষ্মীপুর ৩৭০০