নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হলো খালেদাকে

Print Friendly

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় ৫ বছরের সাজায় কারাবন্দী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে এবার নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।২০১৫ সালে কুমিল্লায় বাসে পেট্রলবোমা ছুড়ে আগুনে পুড়িয়ে মানুষ হত্যার ঘটনায় একটি নাশকতার মামলা হয়। এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির ৬ শীর্ষস্থানীয় নেতাকেও হুকুমের আসামি করা হয়। এ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।ওই ঘটনায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের সাবেক সংসদ সদস্য জামায়াত নেতা ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে প্রধান আসামি করা হয়। এছাড়াও ৫৬ জনের নাম উল্লেখ এবং আরও ২০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বাসে পেট্রলবোমা নিক্ষেপের ঘটনায় ৮ জন নিহত হন। ওই ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য এবং বিশেষ ক্ষমতা আইনে আরও দুটি মামলা করে পুলিশ।পরবর্তী সময়ে আদালত তিন মামলায় খালেদা জিয়াসহ অন্যদের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। এর মধ্যে গত বছরের নভেম্বর মাসে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আদেশ কুমিল্লার কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক সুব্রত ব্যানার্জি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছে পাঠান।বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মোট ৩৪টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য, ১৫ আগস্ট ‘ভুয়া জন্মদিন’ পালন মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে।উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে। নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রয়েছেন তিনি।বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম কোনও সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে দুর্নীতির কারণে কারাবরণ করতে হল।এছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দুর্নীতি মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৫ জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানা করা হয়।