লাগাম ছাড়া চালের বাজার

Print Friendly
লাগাম ছাড়া চালের বাজার

ঢাকা: সরকারের নানা পদক্ষেপের পরও লাগাম টানা যাচ্ছে না চালের দামে। মিনিকেট চালের দাম এখনো কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে মানভেদে ৬০-৬৫ টাকায়। সংকট না থাকলেও মিলারদের ইচ্ছায় বাড়ছে দাম বলছেন চাল ব্যবসায়ীরা। সরকারকে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান ভোক্তা সংগঠন ক্যাবের।

গেল বছরে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে চালের দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। কয়েক দফায় দাম বেড়ে মিনিকেট চালের দাম উঠে ৭০ টাকায়। বাজার নিয়ন্ত্রণে কমানো হয় শুল্ক। পাশাপাশি খোলাবাজারে চাল বিক্রি করে সরকার। এতে কেজি প্রতি ২-৪ টাকা দাম কমলেও আবার বেড়েছে দাম।

রাজধানীতে খুচরা ও পাইকারি বাজারে সরু চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ২ টাকা পর্যন্ত। মোহাম্মাদপুর কৃষি মার্কেট, বাবু বাজারে মিনিকেট নামে পরিচিত মাঝারী মানের সরু চালে বিক্রি হচ্ছে পাইকারি ৬১-৬২ টাকায়। দাম বেড়ে নাজিরশাইল চাল ৬৫- ৭০ টাকায় আর আটাশ জাতের চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা দরে। খুচরা বাজারে তা আরও কয়েক টাকা বেশী।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, চাহিদা মাফিক চালও পাচ্ছেন মিল থেকে, তবে গুনতে হচ্ছে বেশী দাম। মিলারদের ইচ্ছামত দাম বাড়ানোর প্রতিফলন ঘটছে বাজারে।

চাল সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ না করলে সুফল পাবে না ভোক্তারা বলে মনে করে কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাব।

তবে, বাড়েনি আমদানি করা স্বর্ণা জাতের মোটা চালের দাম। সরকারী হিসেবে বর্তমানে চালের মজুদ আছে সোয়া নয় লাখ টন। চলতি অর্থবছরের সাত মাসেই আমদানি হয়েছে ২৮ লাখ মেট্রিক টনের বেশি।