আনিসুল হকের জন্য কাঁদলেন সাঈদ খোকন

Print Friendly

unnamed

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) সদ্যপ্রয়াত মেয়র আনিসুল হক বলিষ্ঠ ও সাহসী মানুষ ছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, শহরে বা সমাজে আনিসুল হকের মতো মানুষ প্রতিদিন জন্মাবে না। তাঁর এই শূন্যতা খুব সহজে পূরণ হবে না।

আজ শুক্রবার বিকেলে বনানীতে নিজ বাস ভবনে আনিসুল হককে স্মরণ করতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন সাঈদ খোকন। এ সময় তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তিনি কেঁদে ফেলেন।

সাঈদ খোকন বলেন, ‌‌‌‌‘আনিস ভাইয়ের সঙ্গে আমার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। প্রতিদিন আমরা সকালে কুশল বিনিময় করতাম। শহরের নানা সমস্যা কীভাবে সমাধান করা যায়, সে বিষয়ে খোলামেলা কথা বলতাম। মানুষের সেবার মনোভাব ছিল আমাদের মধ্যে প্রকট। তাঁর বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে আমি অনুপ্রাণিত হই। আবার আমার বিভিন্ন কর্মকাণ্ডেও তিনি অনুপ্রাণিত হতেন। দুজনে মিলেই দুই-আড়াই বছর সময়ে আমরা যে সমস্যা সমাধান করেছি, পরিবর্তনের ইতিবাচক ধারার সূচনা করতে সক্ষম হয়েছি। হঠাৎ করেই এমন একটা ঘটনায় আমরা অত্যন্ত ব্যথিত। আমরা অত্যন্ত শোকাহত।’

ডিএসসিসির মেয়র বলেন, ‘আনিসুল হকের মৃত্যু আমাদের জন্য অনেকটাই অপ্রত্যাশিত ছিল। হঠাৎ করেই তিনি অসুস্থ হয়ে যাবেন। দীর্ঘদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে আমাদের ছেড়ে চলে যাবেন—এটা আমরা কখনো কল্পনাও করিনি, ভাবতেও পারিনি।’ তিনি বলেন, ‘মানুষ সমাজে বাস করলে ভুলভ্রান্তি করেই থাকে। তাঁর যদি কোনো ভুল হয়ে থাকে আপনারা তা ক্ষমা করে দেবেন। আমি তাঁর ছোট ভাই হিসেবে তাঁর জন্য ক্ষমা চাইছি। আমাদের পক্ষ থেকে ডিএনসিসির জন্য সাহায্য-সহযোগিতা থাকবে।’

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাতে লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। আগামীকাল শনিবার বেলা ১১টা ৪০মিনিটে আনিসুল হকের মরদেহ ঢাকায় আনা হবে। বিমানবন্দর থেকে মরদেহ তাঁর বাসায় নেওয়া হবে। ওই দিন বাদ আসর তাঁকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে পরিবারের একটি সূত্র জানিয়েছে।

গত ২৯ জুলাই ব্যক্তিগত সফরে সপরিবার যুক্তরাজ্যে যান মেয়র আনিসুল হক। অসুস্থ হয়ে পড়লে গত ১৩ আগস্ট তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাঁর শরীরে মস্তিষ্কের প্রদাহজনিত রোগ ‘সেরিব্রাল ভাস্কুলাইটিস’ শনাক্ত করেন চিকিৎসকেরা। এরপর তাঁকে দীর্ঘদিন আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। একপর্যায়ে মেয়রের শারীরিক পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় তাঁর কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্র খুলে নেওয়া হয়। কিন্তু মঙ্গলবার মেয়রের পরিবারের একজন সদস্য বলেন, রক্তে সংক্রমণ ধরা পড়ায় তাঁকে আবার আইসিইউতে নেওয়া হয়। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাতে মেয়রকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।

এফবিসিসিআই ও বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি, ব্যবসায়ী ও একসময়ের টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব আনিসুল হক ২০১৫ সালে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৫২ সালে চট্টগ্রামের নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তবে তাঁর শৈশবের একটি বড় সময় কাটে ফেনীর সোনাগাজীর নানার বাড়িতে।

আশি ও নব্বইয়ের দশকে টিভি উপস্থাপক হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছিলেন আনিসুল হক। তাঁর উপস্থাপনায় ‘আনন্দমেলা’ ও ‘অন্তরালে’ অনুষ্ঠান দুটি জনপ্রিয়তা পায়। তবে পরে টেলিভিশনের পর্দায় মানুষ তাঁকে বেশি দেখেছিল ব্যবসায়ী নেতা হিসেবেই। ২০০৫-০৬ সালে বিজিএমইএর সভাপতির দায়িত্ব পালনের পর ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি হন তিনি। ২০১০ থেকে ২০১২ সাল মেয়াদে সার্ক চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন আনিসুল হক।