হাজার রোহিঙ্গা হত্যা : বাংলাদেশে ঢুকেছে ২ লাখ ৭০ হাজার

Print Friendly

1

গত দুই সপ্তাহে মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে জীবন বাঁচাতে ২ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। আর এসময়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অন্তত ১ হাজার রোহিঙ্গাকে হত্যা করেছে।   শুক্রবার জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর’র মুখপাত্র ভিভিয়ান টানের বরাত দিয়ে রয়টার্স এ খবর প্রকাশ করেছে।

ভিভিয়ান টান জানান, তাদের সংস্থা সীমান্ত এলাকায় শরণার্থী প্রবেশের নতুন পথের খোঁজ পেয়েছে। ফলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আশ্রয় নেওয়া ১ লাখ ৬৪ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা এক লাফে বেড়ে গেছে।খবরে বলা হয়, গত দুই সপ্তাহে ২ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে। শরাণার্থী শিবিরগুলোতে অপ্রতিরোধ্য রোহিঙ্গাদের ভিড় বেড়েছে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা থেকে বাঁচার জন্য পালানোর সময় মৃত্যু হয়েছে অনেকের।এদিকে, বাংলাদেশে ঠাঁই নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা তিন লাখ ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।এসময়ে কমপক্ষে পাঁচটি নৌকা ডুবে ৬০ জনের বেশির রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের পুলিশ ও বর্ডার গার্ড।একজন রোহিঙ্গা শরণার্থী সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেন, তিনি এবং তার পরিবার রাখাইনের পৌর এলাকা থেকে পালিয়ে একটি স্থানে নৌকার জন্য চারদিন অপেক্ষা করেছেন।তিনি বলেন, নিপীড়নের শিকার জনগণ যে কোনো মূল্যে নিরাপদ স্থান খুঁজছিল। ফলে তারা দুর্বল নৌকাকে বাঁচার অবলম্বন করে। আমি এ ধরনের দুইটি নৌকাকে ডুবে যেতে দেখেছি।গত ২৪ আগস্ট রাখাইনে বেশ কয়েকটি তল্লাশিচৌকিতে কোনো এক বিদ্রোহী গোষ্ঠী হামলা চালায়। এতে নিরাপত্তা বাহিনীর ১২ সদস্যসহ নিহত হন ৭০ জনের বেশি মানুষ। এই হামলার জন্য দেশটির সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে দায়ী করে তাদের ওপর নির্বাচারে নির্যাতন ও হত্যা শুরু করে। এরপর থেকেই রাখাইন রাজ্য থেকে কক্সবাজারের টেকনাফের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে নাফ নদী পার হয়ে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসতে শুরু করে।