সমতায় শেষ বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

Print Friendly

Australia's Peter Handscomb, right, plays a shot as Bangladesh's wicketkeeper captain Mushfiqur Rahim watches the ball during the third day of their second test cricket match in Chittagong, Bangladesh, Wednesday, Sept. 6, 2017. (AP Photo/ A.M. Ahad)

চট্টগ্রাম টেস্টে দুর্দান্ত জয় তুলে নিলো অস্ট্রেলিয়া। ব্যাটে-বলে অনবদ্য পারফরম করে ৭ উইকেটে জিতেছে অজিরা। আর ঢাকা টেস্টে দেড়দিন হাতে রেখে ২০ রানের ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় দুর্বার টাইগাররা। এতে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া বহুল প্রত্যাশিত ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজ ১-১ ব্যবধানে শেষ হলো।প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের কাছে হেরে দারুণ সমালোচিত হচ্ছিলেন অজি ক্রিকেটাররা। দ্বিতীয় টেস্ট জিতে তার-ই যেনো সমুচিত জবাব দিলেন তারা। জয় শেষে বেশ হাস্যোজ্জ্বল দেখা গেছে স্মিথদেরও। সামনে রয়েছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজ। এর আগে অন্তত চনমনে থাকতে পারবেন তারা।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। দলীয় ১৩ রানে মুস্তাফিজের বলে সৌম্যর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ওয়ার্নার (৮)। এ নিয়ে ২ ইনিংসেই অজি মারকুটে ওপেনারকে ফেরালেন কাটার মাস্টার।এরপর স্মিথকে নিয়ে এগিয়ে যান রেনশো। তাকে ভালো সঙ্গও দেন অজি অধিনায়ক। তাইজুলে বলে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে রেনশোর সঙ্গে ৩১ রানের মহামূল্যবান জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামলে ওঠেন স্মিথ (১৬)।অবশ্য এর কিছুক্ষণ পরই মুশফিকের গ্লাভসবন্দি করে রেনশোকে ফিরিয়ে অস্ট্রেলিয়া শিবিরে আতঙ্ক সৃষ্টি করেন সাকিব। তবে চতুর্থ উইকেটে হ্যান্ডসকম্ব ও ম্যাক্সওয়েল টি-টোয়েন্টি স্টাইলে খেলে বাংলাদেশকে উল্টো জবাব দেন। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হাতে রেখে জয় ছিনিয়ে নেয় অস্ট্রেলিয়া।অস্ট্রেলিয়া শিবিরে আঘাত হানলেন বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দলীয় ৪৮ রানে মুশফিকের গ্লাভসবন্দি করে রেনশোকে ফিরিয়েছেন তিনি।

এর আগে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে সবক’টি উইকেট হারিয়ে ১৫৭ রান করে বাংলাদেশ। এতে ৮৫ রানের লিড নেয় স্বাগতিকরা। নিজেদের ইনিংসের শুরুতেই ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। শুরুতেই উইকেট বিলিয়ে আসেন সৌম্য। এরপর যাওয়া-আসার প্রতিদ্বন্দ্বিতায় লিপ্ত হন টাইগার ব্যাটসম্যানরা। লায়নের শিকার হয়ে একে একে ফেরেন তামিম, কায়েস ও সাকিব। আর স্টিভ ও কেফির বলি হন নাসির।মাত্র ৪৩ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ইনিংস হারের শঙ্কা জাগে বাংলাদেশের। তবে মুশফিক ও সাব্বিরের ব্যাটে তা কাটিয়ে উঠে টাইগাররা। দু’জনে লড়াইয়েরও আভাস দেন। সেই যাত্রায় ব্যর্থ হন সাব্বির (২৪)। লায়নের থাবায় এ হার্ডহিটার ফিরলেও একপ্রান্ত আগলে রাখেন মুশফিক। মুমিনুলকে নিয়ে তিনি দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন। তবে লড়তে লড়তে হার মানেন বাংলাদেশ অধিনায়ক (৩১)।এরপর মিরাজকে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রাণান্ত চেষ্টা চালান আশার ভরসা হয়ে থাকা মুমিনুল। এবার থেমে যান পয়েট অব ডায়নামো নিজেই (২৯)। লায়নের শিকার হয়ে তিনি ফিরে গেলে তাইজুলকে নিয়ে কিছুক্ষণ লড়াই চালিয়ে যান মিরাজ। অবশেষে থামে তাদের লড়াইও। শেষ পর্যন্ত সবক’টি উইকেট হারিয়ে ১৫৭ রান করে বাংলাদেশ।অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৬ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে দেন নাথান লায়ন। ২টি করে উইকেট নিয়ে তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন প্যাট কামিন্স ও স্টিভ ও কেফি।